সারাদেশ

গজারিয়ায় প্রথম ধাপে আলু উত্তোলন শুরু

১২ মার্চ ২০২১,বিন্দুবাংলা টিভি. কম,

ওসমান গনি,
গজারিয়া প্রতিনিধিঃ মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলায় প্রথম ধাপে শুরু হয়েছে আলু উত্তোলনের কাজ। বিস্তীর্ণ মাঠ জুড়ে রোপনকৃত আলু ভালো দামে বিক্রির আশা নিয়ে আলু উত্তরণের উৎসবে মেতেছেন এ উপজেলার কৃষকরা।

এ বছর উপজেলার ০৮ টি ইউনিয়নে ২ হাজার ৪ শত ৫৫ হেক্টর জমিতে আলু আবাদ করা হয়েছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় আলুর ফলন ভালো হওয়া স্বত্বেও ন্যায্য দাম পাওয়া নিয়ে দুশ্চিতায় রয়েছেন অনেক কৃষক।

এ ছাড়া গত বছরের তুলনায় এবছর আলু উৎপাদনে তুলনামূলক ভাবে খরচ বেশী হওয়ায় অনেক কৃষক লোকসানের কবলে পরার শঙ্কায় রয়েছেন। কৃষকদের সাথে কথা বলে জানা যায়, বীজ, সার, কীটনাশক ও শ্রমিক খরচসহ অন্যান্য আনুষঙ্গিক খরচ মিলিয়ে ১ মন আলু উৎপাদন খরচ পরেছে ৬শত টাকা।

সে হিসেবে প্রতি কেজি আলু উৎপাদনে কৃষকের খরচ হয়েছে ১৫-১৬ টাকা। এছাড়া প্রতি বস্তা আলু বস্তা-জাত করণ ও পরিবহনে আরও ২-৩ টাকা খরচ রয়েছে কৃষকের। কিন্তু বর্তমান বাজারদর হিসেবে প্রতি মন আলুর দাম ৫শ থেকে ৫শ ৫০ টাকা বা এর চেয়ে কম।

একারণে কৃষকরা তাদের উৎপাদিত আলু ন্যায্য দাম পাওয়া নিয়ে অনেকটাই চিন্তিত। টেংগারচর গ্রামের কৃষক জিসান মিয়া বলেন, আমি এবার ২ কানি জমিতে আলু বুনেছি। এতে আমার ৪ লক্ষ টাকা খরচ হয়েছে।

এবার জমিনের দাম, সারের দাম ও শ্রমিক খরচসহ অন্যান্য খরচ বেশী। তবে আলুর ফলন ভালো হলেও দাম কেমন পাই তা নিয়ে চিন্তায় আছি।

১ মন আলুর উৎপাদনে সব খরচ মিলিয়ে ক্ষেতেই খরচ হয়েছে ৬শ টাকা। আলু উঠাইতেছি কিন্তু এখনো পাইকার আসে নাই। যারাও আসছে তারা দাম কম বলে তাই আলু বেচি নাই।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জনাব তৌফিক আহমেদ নুর জানান, এ বছর গজারিয়ায় ২ হাজার ৪ শত ৫৫ হেক্টর জমিতে আলু রোপন করা হয়েছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এবার আলুর ভালো ফলন হবে বলে আমরা আশাবাদী। ভালো ফলনের জন্য উপজেলার কৃষকদের আমরা নিয়মিত পরামর্শ দিয়ে এসেছি। অনেক কৃষক বলেছেন তাদের ফলন ভালো হয়েছে। আশা রাখি তারা দামও ভালো পাবেন।

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Back to top button