সারাদেশ

টঙ্গীতে ভূয়া ব্রিটিশ সিটিজেন জলিলের খপ্পরে পড়ে নিঃস্ব লন্ডন প্রবাসী উজ্জল

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, বিন্দুবাংলা টিভি. কম,
গাজীপুর প্রতিনিধি :
টঙ্গীতে ভুয়া বৃটিশ সিটিজেন আব্দুল জলিলের খপ্পরে পড়ে লন্ডন যাওয়ার জন্য ৭ লাখ টাকা দিয়ে নিঃস্ব মোঃ হুসনী মোবারক উজ্জল এখন পাগল প্রায়। ভুয়া বৃটিশ সিটিজেন ও টঙ্গীর ইসলামপুর এলাকার বাসিন্দা আব্দুল জলিলকে খোঁজে পাচ্ছে না উজ্জল। উজ্জলকে লন্ডন নিয়ে চাকরির ব্যবস্থা করে দেয়ার কথা বলে গত ২০১৮ সালে ৭ লাখ টাকা নেয় ইসলামপুর এলাকার মৃত আব্দুল করিম তালুকদারের ছেলে আব্দুল জলিল তালুকদার। টাকা নেয়ার কিছু দিন যাবৎ জলিলের সাথে যোগাযোগ থাকলেও বর্তমানে তাকে খোঁজে পাচ্ছে না উজ্জল। করোনায় তার আয় রোজগার বন্ধ থাকায় টাকার অভাবে মানবেতর ভাবে জীবন যাপন করতে বাধ্য হচ্ছে উজ্জল। তাই আব্দুল জলিলকে দেয়া টাকা আদায়ের জন্য হন্ন্যে হয়ে তাকে খোঁজে ফিরছে টঙ্গীর বিভিন্ন এলাকা।
জানা যায়, টঙ্গীর ইসলামপুর এলাকার একটি প্রতিষ্ঠানে চাকুরি করে জীবিকা নির্বাহ করত হুসনী মোবারক উজ্জল। সংসারে স্বচ্ছলতা আনতে ও ভালোভাবে বেঁচে থাকার জন্য বিদেশে যাওয়ার স্বপ্ন ছিল উজ্জলের। তার সাথে একদিন কথা হয় আব্দুল জলিল তালুকদারের। তার স্বপ্নের কথা বললে আব্দুল জলিল তালুকদার তাকে জানায়, আমি ব্রিটিশ সিটিজেনশিপ। লন্ডন নেয়া কোন ব্যাপার না। আমি তোমাকে মাত্র ১২ লাখ টাকায় লন্ডন নিয়ে ভালো কাজের ব্যবস্থা করে দিতে পারব। তবে প্রথমে ৭ লাখ টাকা দিলেই ভিসার প্রসেস করা যাবে। মাত্র ৬ মাসের মধ্যেই তাকে লন্ডন পাঠানো সম্ভব বলে জলিল উজ্জলকে জানায়। এসময় জলিল তাকে তার পাসপোর্টের ফটোকপি দেখায়। এছাড়াও আব্দুল জলিলের কয়েকজন সহযোগী তাকে আশ্বস্থ করে বলে টাকা দিলে সমস্যা নাই। তোমাকে লন্ডন নিতে পারবে জলিল। তাদের কথায় ও জলিলের দেয়া কাগজপত্র দেখে বিশ্বাস করে উজ্জল ২০১৮ সালের মার্চ মাসে ৭ লাখ টাকা আব্দুল জলিল তালুকদারের হাতে তুলে দেয়। এসময় আব্দুল জলিল তাকে তার ব্রিটিশ সিটিজেন পাসপোর্ট যার নং-৫৩৩৩০৪৭৪২, যার ইস্যু তারিখ ১৪ ডিসেম্বর ১৫ইং ও মেয়াদ ১৪ জানুয়ারী ২৬ইং এর ফটোকপি ও আইডি কার্ড নং ৩৩০৭৯০৭০৮৩ এর ফটোকপি দেয়। এরপর থেকে তাদের মাঝে ফোনে যোগাযোগ থাকে। এর এক বছর পর থেকে আব্দুল জলিল তালুকদার তাকে হবে হচ্ছে বলে ঘুরাতে থাকে। এসময় আব্দুল জলিল তাকে বাকি টাকা সংগ্রহ করতে বলে। কিন্তু আব্দুল জলিলের আচরণে সন্দেহ হলে এলাকায় খোঁজ নেয় উজ্জল। এসময় জানতে পারে, আব্দুল জলিল কখনই বিদেশে ছিল না। সে এলাকায় জমির দালালি করে। সে বিভিন্ন ভাবে প্রতারণা করে মানুষের টাকা হাতিয়ে নেয়। এলাকাবাসী জলিলের দেয়া কাগজপত্রও ভুয়া বলে উজ্জলকে জানায়। এসময় জলিলের আইকার্ডের ফচোকপি দেখে এলাকাবাসী জানায়, সে এ এলাকার না। অন্য এলাকার। তার আরও আইডি থাকেত পারে। এরপর থেকে উজ্জল জলিলকে হন্ন্যে হয়ে খোঁজে বেরাচ্ছে। তার দেয়া মোবাইলে ফোন করলে নুর মোহাম্মদ নামে এক লোক ফোন ধরে। সে উজ্জলকে জানায়, আব্দুল জলিল ঢাকার মিরপুরের সেনপাড়ায় থাকে। উজ্জল টাকার অভাবে মানবেতর জীবন যাপন করছে। অসুস্থ্য পরিবারকে সে চিকিৎসা দিতে পারছে না। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট সকলের সহেযাগিতা কামনা করেন ভূক্তভোগী হুসনী মোবারক উজ্জল।

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Check Also
Close
Back to top button